এনআইটি, আইআইইএসটি অধিকর্তা বাছাই কমিটির মাথায় শিক্ষামন্ত্রী, মোদী সরকারের সিদ্ধান্তে বিতর্ক

By: Krishnendu Adhikary, Ashabul Hossain, Manoj Banerjee, ABP Ananda | Last Updated: Thursday, 10 August 2017 10:30 PM
এনআইটি, আইআইইএসটি অধিকর্তা বাছাই কমিটির মাথায় শিক্ষামন্ত্রী, মোদী সরকারের সিদ্ধান্তে বিতর্ক

কলকাতা: ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউটস অফ ইঞ্জিনিয়ারিং সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি কিংবা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউটস অফ টেকনোলজি, এ সবই উচ্চশিক্ষার জন্য দেশের শীর্ষ প্রতিষ্ঠান। শিক্ষামহলের মতে, আইআইইএসটি বা এনআইটি-র মতো প্রতিষ্ঠানের অধিকর্তা যিনি হন, তাঁকে কাজ করতে হয় একমাত্র উৎ‍কর্ষের লক্ষ্যে। নিরপেক্ষভাবে। কিন্তু, মোদী সরকার যে নয়া নীতি তৈরি করেছে, তাতে অনেকেই অশনি সংকেত দেখছেন। কারণ, নতুন নীতি অনুযায়ী, এনআইটি এবং আইআইইএসটি এই দুই কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠানেরই অধিকর্তা বাছার জন্য যে সার্চ কমিটি, তাঁর মাথায় বসানো হয়েছে মোদী সরকারের শিক্ষামন্ত্রীকে।

কেন্দ্রীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির দৈনন্দিন কাজকর্ম দেখার জন্য যে পরিচালন সমিতি বা কাউন্সিল রয়েছে, পদাধিকার বলে তাঁর চেয়ারম্যান হন মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী। এমনটাই বা কেন হবে? এই প্রশ্নও তুলছে শিক্ষামহলের একাংশ।

কেন্দ্রের এই নয়া নীতি ঘিরে রাজনৈতিক তরজাও শুরু হয়েছে। বিরোধীদের দাবি, মোদী সরকার আসলে চাইছে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলির মাথাতেও নিজেদের লোক বসাতে। তাই, তো নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালন সমিতি থেকে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনকে সরিয়ে বসানো হয় আরএসএস ও মোদী-ঘনিষ্ঠ বলে যাঁরা পরিচিত তাঁদের।

বিজেপি অবশ্য বিরোধীদের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে। তাদের দাবি, কেন্দ্রীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলিকে আরও ভাল ভাবে যাতে পরিচালনা করা যায়, সেই লক্ষ্যেই এগোচ্ছে মোদী সরকার।

শিক্ষামহলের একাংশের কিন্তু প্রশ্ন, কেন্দ্রীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধিকর্তা বাছাইয়ের সার্চ কমিটির মাথায় যদি মন্ত্রী বসেন, তা হলে কি আর শিক্ষাকে রাজনীতিমুক্ত করা সম্ভব? আর শিক্ষায় যদি রাজনীতি ঢোকে তা হলে তো মেধা চলে যাবে পিছনের সারিতে! মোদী সরকারের অবশ্য দাবি, যা হয়েছে সেটা শিক্ষার উন্নয়নের লক্ষ্যেই করা হয়েছে।

First Published: Thursday, 10 August 2017 10:30 PM