শুধু কলকাতা নয়, বিভিন্ন জেলাতেও ছড়িয়েছে মেয়াদ ফুরানো ওষুধ, বলছে পুলিশ

By: Mayukh Thakur Chakraborty, ABP Ananda | Last Updated: Sunday, 12 March 2017 5:30 PM
শুধু কলকাতা নয়, বিভিন্ন জেলাতেও ছড়িয়েছে মেয়াদ ফুরানো ওষুধ, বলছে পুলিশ

কলকাতা:  মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধের মারণ-কারবারে চাঞ্চল্যকর তথ্য! পুলিশের হাতে যা তথ্য উঠে এল, তা রীতিমতো উদ্বেগের! লালবাজার সূত্রে দাবি, তদন্তে নেমে গোয়েন্দারা জানতে পেরেছেন, কলকাতা ছাড়িয়ে এই চক্রের জাল পৌঁছেছে জেলায়-জেলায়! অর্থাত, মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়া ওষুধ, রিপ্রিন্ট হয়ে চলে গিয়েছে জেলার দোকানগুলিতেও!
পুলিশ সূত্রে দাবি, এখনও পর্যন্ত এরকম ৫টি জেলা চিহ্নিত করতে পেরেছেন গোয়েন্দারা। চিহ্নিত করা হয়েছে কয়েকজন ডিস্ট্রিবিউটারকেওও।
শনিবার, বড়বাজার থেকে পল্টু হাজরা নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সূত্রের দাবি, তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, ধৃত ব্যক্তি এই চক্রে মিডল ম্যান হিসেবে কাজ করতেন। এক্সপায়ারড ওষুধ রিপ্রিন্ট হওয়ার পর, তাঁর মাধ্যমেই, ছড়িয়ে গিয়েছে জেলায় জেলায়!
গত ৯ মার্চ লালবাজারে অভিযোগ দায়ের করেন স্টেট ড্রাগ কন্ট্রোলার। তার ভিত্তিতে, তদন্তে নামে পুলিশ। গ্রেফতার করা হয়,
ওষুধের হোলসেলার, হাওড়ার গোলাবাড়ির বাসিন্দা রিনেস সারোগি এবং বড়বাজারের ক্যানিং স্ট্রিটের ছাপাখানার মালিক পবন ঝুনঝুনওয়ালা।
কিন্তু যেসব ওষুধের মেয়াদ ফুরিয়ে গিয়েছে, সেই সব ওষুধ বাজারে কীভাবে চালানো হত? পুলিশ সূত্রে দাবি, ২ নামী ওষুধ কোম্পানির কাছ থেকে মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ কিনতেন হোলসেলার রিনেস সারোগি। তারপর সেই সময় মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ পাঠিয়ে দেওয়া হত ক্যানিং স্ট্রিটের এই ছাপাখানায়। সুকৌশলে ওষুধের স্ট্রিপ বা শিশি থেকে নেলপালিশ রিমুভার দিয়ে মুছে দেওয়া হত এক্সপায়ারি ডেট! অর্থাত, কোনও ওষুধের এক্সপায়ারি ডেট লেখা রয়েছে….জানুয়ারি ২০১৭….সেটাই করে দেওয়া হত ২০১৯!
এভাবেই নতুন মোড়কে বাজারে ছড়িয়ে দেওয়া হত মেয়াদউত্তীর্ণ ওষুধ! সেই ওষুধই কিনতেন সাধারণ মানুষ। এর নেপথ্যেও ছিল বিপণনের কৌশল। পুলিশ সূত্রে দাবি, নতুন তারিখ দেওয়া মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ ছাপাখানা থেকে ফিরে যেত হোলসেলার রিনেস সারোগির কাছে। এরপর অসাধু স্টকিস্টকে ওই ওষুধ দিয়ে দিতেন রিনেস। সেখান থেকে দোকানে দোকানে পৌঁছে যেত মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ। তারপরই সেই সব ওষুধ চলে যেত সাধারণ মানুষে হাতে।
জালিয়াতির এই কারবারের কুশীলব কোনও একজন ব্যক্তি বা কোনও এক সংস্থা নয়। তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, নেপথ্যে রয়েছে একটা বড়সড় চক্র! সেই মডিউডেরই হদিশ পেতেই চাইছে লালবাজার!

First Published: Sunday, 12 March 2017 2:13 PM

Related Stories

আজকের রাশিফল
আজকের রাশিফল

মেষ বন্ধুদের সঙ্গে কোনও কারণে অশান্তি বাধতে পারে । কোনও মহিলার ব্যাপারে

শ্রীজাতর বিরুদ্ধে জামিন-অযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের
শ্রীজাতর বিরুদ্ধে জামিন-অযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের

কলকাতা: কবিতার শব্দচয়নে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত লাগার অভিযোগে মামলা রুজু হল

বর্ধমান দুর্ঘটনা: থমথমে হাওড়া স্টেশনের আরপিএফ অফিস, শোকের ছায়া রেল কোয়ার্টারে
বর্ধমান দুর্ঘটনা: থমথমে হাওড়া স্টেশনের আরপিএফ অফিস, শোকের ছায়া রেল...

হাওড়া: একটি দুর্ঘটনা কেড়ে নিয়েছে ৭জনকে। একই পরিবারের ৭ সদস্যকে। থমথমে

কুপ্রস্তাবে নারাজ গৃহবধূকে খুনের চেষ্টা, বাধা দিতে গিয়ে প্রহৃত বাবা-বোন
কুপ্রস্তাবে নারাজ গৃহবধূকে খুনের চেষ্টা, বাধা দিতে গিয়ে প্রহৃত...

মালদা: মালদার হবিবপুরে কুপ্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ার গৃহবধূকে খুনের চেষ্টার

গাড়ির ওপর উল্টে পড়ল আলকাতরা ভর্তি ট্যাঙ্কার, ২ শিশুসহ ৭ জনের মৃত্যু
গাড়ির ওপর উল্টে পড়ল আলকাতরা ভর্তি ট্যাঙ্কার, ২ শিশুসহ ৭ জনের...

বর্ধমান: বর্ধমানে ২ নম্বর জাতীয় সড়কে ফের মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। ওভারটেক

সপ্তাহের শেষ থেকেই হাঁসফাঁস গরম?
সপ্তাহের শেষ থেকেই হাঁসফাঁস গরম?

কলকাতা: বসন্তে শীতের সুখ উধাও। বাড়ছে গরম। সপ্তাহের শেষেই কলকাতার

ব্যাঙ্ককর্মী পরিচয়ে ডেবিট কার্ড জালিয়াতি: বীরভূমের গৃহবধূর অ্যাকাউন্ট থেকে উধাও প্রায় লক্ষ টাকা
ব্যাঙ্ককর্মী পরিচয়ে ডেবিট কার্ড জালিয়াতি: বীরভূমের গৃহবধূর...

বীরভূম: ফের ডেবিট কার্ডের তথ্য হাতিয়ে জালিয়াতি। বীরভূমের গৃহবধূর

মদের ‘বিষক্রিয়ায়’ বারুইপুরে ১২ জনের মৃত্যু, চোলাইয়ের ঠেকে ভাঙচুর ক্ষিপ্ত জনতার
মদের ‘বিষক্রিয়ায়’ বারুইপুরে ১২ জনের মৃত্যু, চোলাইয়ের ঠেকে ভাঙচুর...

দক্ষিণ ২৪ পরগনা: ফের দক্ষিণ ২৪ পরগনার বারুইপুরে বিষমদে মৃত্যুর অভিযোগ।

নারদ মামলা: সুপ্রিম কোর্টে ভৎর্সনার মুখে পড়ল রাজ্য সরকার
নারদ মামলা: সুপ্রিম কোর্টে ভৎর্সনার মুখে পড়ল রাজ্য সরকার

নয়াদিল্লি: নারদ-মামলায় সিবিআই তদন্ত তো বহাল রইলই। সেই সঙ্গে কলকাতা

নারদ মামলায় সিবিআই তদন্ত বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট
নারদ মামলায় সিবিআই তদন্ত বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট

নয়াদিল্লি: নারদকাণ্ডে সিবিআই তদন্তই বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট। কলকাতা

Recommended